(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Friday, March 15, 2013

নিরীহদের গ্রেপ্তার করছে পুলিস, মহিলার গায়েও হাত তুলছে তৃণমূলীরা, সন্ত্রস্ত ইংরেজবাজার


নিরীহদের গ্রেপ্তার করছে পুলিস,মহিলার গায়েও হাত তুলছে তৃণমূলীরা, সন্ত্রস্ত ইংরেজবাজার

নিজস্ব সংবাদদাতা


মালদহ, ১৪ই মার্চ— উপ-নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর থেকে ইংরেজবাজার বিধানসভা এলাকার ৩নং ওয়ার্ডে সি পি আই (এ‌ম) কর্মীদের ওপর লাগামছাড়া আক্রমণ চলছে। তৃণমূলী আক্রমণের প্রতিবাদ জানিয়ে ১২ই মার্চ ইংরেজবাজার থানার আই‍‌ সি-র কাছে ডেপুটেশন দিয়ে এলাকার নাগরিক জীবন স্বাভাবিক রাখার আবেদন জানানো হয়েছিলো। আই সি নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতার আশ্বাস দিলেও বাস্তবে কোন কাজ হয়নি তা পরিষ্কার হয়ে গেছে বুধবার ও বৃহস্পতিবারের ঘটনার জেরে। শুধু সি পি আই (এম) সমর্থকদের ওপর আক্রমণ অব্যাহত রয়েছে তা নয়। বৃহস্পতিবার তৃণমূল সমর্থকদের সাথে নিয়ে পুলিস ৬জন নিরাপরাধ এলাকাবাসীকে গ্রেপ্তার করেছে জামিন অযোগ্য ধারায়। আর বিপরীতে এলাকার নাগরিকদের করা অভিযোগের ভিত্তিতে তৃণমূল কর্মীদের গ্রেপ্তার করা তো দূরের কথা, অভিযুক্তরা এলাকায় বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এলাকার মানুষদের শাসাচ্ছে।

বুধবার রাত ৮-৩০ মিনিট নাগাদ ৩নং ওয়ার্ডের হঠাৎপাড়ায় একটি পুলিস ভ্যান আসে এবং কিছুক্ষণ পর ফিরে যায়। পুলিস ফিরে যাওয়া মাত্র এলাকার তৃণমূল দুষ্কৃতী হিসাবে পরিচিত তিলু মণ্ডল, সাগর মণ্ডল, শুভঙ্কর রায়, স্বপন মণ্ডল, দীপু মণ্ডল, সকলেই রবীন্দ্র ভবন মোড়ের নিচপাড়ার বাসিন্দা কালা মণ্ডল নামে এক ব্যক্তিকে মারধর করতে শুরু করে। পকেটের টাকাও ছিনিয়ে নেয়। ঐ সময় পাড়ার এক দোকান থেকে জিনিস কিনছিলেন কালা মণ্ডলের স্ত্রী আদুরী মণ্ডল। স্বামীকে আক্রান্ত হতে দেখে আদুরী মণ্ডল বাধা দিতে গেলে দুষ্কৃতীরা তাকেও মারধর করতে শুরু করে। আদুরী মণ্ডলের চেঁচামেচিতে এলাকার মানুষ বিশেষত মহিলারা এগিয়ে এসে বাধা দিতে গেলে দুষ্কৃতীরা পালিয়ে গিয়ে বিশ্বনাথ দেবনাথের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। পরে এ ব্যাপারে আদুরী মণ্ডল ইংরেজবাজার থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। যার কেস নম্বর ১৯৩/১৩।

সবচেয়ে বড় ব্যাপার তৃণমূল দুষ্কৃতীরা এলাকার নিরীহ নাগরিকদের বিরুদ্ধে একটি পালটা মামলা দায়ের করে। হামলাকারী দুষ্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করলেও তৃণমূলের পক্ষ থেকে দায়ের করা মিথ্যা মামলার ভিত্তিতে ৬জনকে গ্রেপ্তার করেছে। জানা গেছে, পুলিসের এই তৎপরতা এলাকার মন্ত্রীর নির্দেশেই।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে আদুরী মণ্ডল যখন বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন তখন তৃণমূল দুষ্কৃতীরা রাস্তা অবরোধ করে দাঁড়িয়ে ছিল। আবার আক্রান্ত হতে পারেন ভেবে আদুরী মণ্ডল সোজা থানায় চলে যান। খবর পেয়ে সি পি আই (এম) নেতৃবৃন্দও চলে আসেন। পরে পুলিসের উপস্থিতিতে এবং সি পি আই (এম) নেতাদের সহায়তায় তিনি বাড়িতে ঢুকতে পারেন। তবে পরিবেশ এখনও সন্ত্রস্ত।

No comments:

Post a Comment