(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Thursday, April 11, 2013

CONGRESS CRITICIZES MAMATA FOR VIOLENCE


তৃণমূলীদের তাণ্ডবের নিন্দায় সরব কংগ্রেস|

নিজস্ব প্রতিনিধি, গণশক্তি

নয়াদিল্লি, ১১ই এপ্রিল — পশ্চিমবঙ্গজুড়ে তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা যে তাণ্ডব চালাচ্ছে তার নিন্দায় সরব হলো এবার কংগ্রেসও। দলের তরফে পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা আহমেদ প্যাটেল বৃহস্পতিবার বেশ চাঁচাছোলা ভাষাতেই জানিয়ে দিলেন, ওখানকার অশান্তি থামানোর দায়িত্ব রাজ্য সরকারেরই। উলটে তৃণমূলের পক্ষ থেকেই হিংসায় মদত যোগানো হচ্ছে বলে গুরুতর অভিযোগও তুললেন প্যাটেল।

গত তিনদিন ধরে পশ্চিমবঙ্গজুড়ে সি পি আই (এম)-সহ বামপন্থী দলগুলির দপ্তর ভাঙচুর, আগুন ধরানোর পাশাপাশি পার্টির নেতা-নেত্রী, কর্মীদের উপর লাগাতার হামলা চালিয়ে যাচ্ছে তৃণমূল নেতাদের নেতৃত্বে দুষ্কৃতীবাহিনী। এদিন এপ্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে আহমেদ প্যাটেল অভিযোগ করলেন, ‘‘পুলিস ও প্রশাসনের ইচ্ছাকৃত নিষ্ক্রিয়তার সুযোগ নিয়ে শুধু বামপন্থীদের দপ্তরই নয়, কংগ্রেস নেতা-কর্মীদের উপরেও সমানতালে হামলা চালাচ্ছে তৃণমূলীরা। আমরা কড়াভাষায় এই কার্যকলাপের নিন্দা করছি।’’ গোটা বিষয়কে ‘অত্যন্ত বিরক্তিকর’ অ্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, কারুরই হিংসায় মদত যোগানো উচিত নয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব রাজ্য সরকারেরই। তারজন্য যা পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন, তাই নিতে হবে সরকারকে। এটা মোটেই প্রতিহিংসা দেখানোর বিষয় নয়। কারুরই আইন তুলে নেওয়া উচিত নয় নিজের হাতে। মমতা ব্যানার্জি এবং তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা-কর্মীরা যা করছেন তা অবাঞ্ছিত। এটা অবশ্যই নিন্দা করা উচিত। কোনো সভ্য সমাজ এবং গণতান্ত্রিক কাঠামোয় হিংসার কোনো জায়গাই নেই।’’ 

কংগ্রেস-তৃণমূল এক সময়ের সম্পর্ক নিয়েও তীব্র শ্লেষ শোনা গেছে তাঁর মুখে। তিনি বলেন, ‘‘তৃণমূলের আচরণের সঙ্গে কোনোভাবেই খাপ খায় না কংগ্রেসের। তাছাড়া যে আশায় জোট গড়া হয়েছিল, তাও পূর্ণ না হওয়ায় সরে আসে কংগ্রেস।’’ এজন্য কোনোরকম দুঃখবোধ নেই তাঁদের, তাও পরিষ্কার জানিয়ে দেন প্যাটেল। মমতার সম্প্রতিক দিল্লি সফর নিয়েও কটাক্ষ করেন কংগ্রেস নেতা। তিনি বলেন, ‘‘ওঁর অনুরোধেই প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী এবং যোজনা কমিশনের ডেপুটি চেয়ারম্যানের সঙ্গে সাক্ষাতের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে কোনো বৈঠক ডাকা হয়নি।’’ এরপরেই তিনি মারাত্মক অভিযোগ করেন মমতার দিল্লি সফর নিয়ে। প্যাটেল বলেন, ‘‘ঐদিন তিনি কলকাতায় থাকতে চাননি। সেদিন নরেন্দ্র মোদী ছিলেন কলকাতায়। বি জে পি এবং তাঁর মধ্যে এখন ক্রমে সখ্য গড়ে উঠলেও তিনি প্রকাশ্যে তা খোলসা করে বলতে চাইছেন না। আসলে লোকসভা নির্বাচনের আগে তিনি সেকথা ঘোষণাও করতে চাইছেন না মূলত সংখ্যালঘু ভোট হারানোর আশঙ্কায়।’’

No comments:

Post a Comment