(CLICK ON CAPTION/LINK/POSTING BELOW TO ENLARGE & READ)

Thursday, April 11, 2013

PEOPLE DEMAND JUDICIAL/CBI ENQUIRY INTO BRUTAL AND SHOCKING MURDER OF 23 YEAR OLD SFI LEADER SUDIPTA GUPTA IN MAMATA’S POLICE CUSTODY


সুদীপ্তর মৃত্যু নিয়ে মানবাধিকার কমিশনকে রিপোর্টই দিলো না পুলিস|

নিজস্ব প্রতিনিধি,গণশক্তি

কলকাতা, ১১ই এপ্রিল- পুলিস হেফাজতে ছাত্রনেতা কমরেড সুদীপ্ত গুপ্তর অকাল মৃত্যুর ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রীর ছোট ও তুচ্ছ ঘটনাতত্ত্বকেই সিলমোহর দেওয়ার পথে হাঁটছে কলকাতা পুলিসআর তাই বেপরোয়া পুলিস এমনকি রাজ্য মানবাধিকার কমিশনের নির্দেশকেও বুড়ো আঙুল দেখালো

গত ৩রা এপ্রিল কমরেড সুদীপ্ত গুপ্তর খুনের ঘটনায় কলকাতা পুলিসকে রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দেয় রাজ্য মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান অশোক গাঙ্গুলিকমিশনের স্পষ্ট নির্দেশ ছিল, ঘটনার তদন্ত করাতে হবে অতিরিক্ত কমিশনার পদমর্যাদার কোনো আধিকারিককে দিয়েসাতদিনের মধ্যেই সেই তদন্তের রিপোর্ট পেশ করতে হবে কমিশনের কাছে

৩রা এপ্রিল সেই নির্দেশ দেওয়ার পর বৃহস্পতিবারই সাতদিনের সময়সীমা শেষ হলোকিন্তু কলকাতা পুলিসের তরফে ছাত্রনেতা মৃত্যুর ঘটনায় কোন তদন্ত রিপোর্টই পেশ করা হলো নাপুলিসী হেফাজতে ২৩ বছরের এক ছাত্রনেতার মৃত্যুতে গোটা রাজ্য এমনকি রাজ্য ছাড়িয়ে দেশজুড়েই তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছেতবে তদন্ত শুরু এমনকি ময়না তদন্ত শেষের আগেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছিলেন, এটা একটা দুর্ঘটনাএমনকি বাঙ্গালোরে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী জানান, এটা ছোট ঘটনা,তুচ্ছ ঘটনামুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি রাজ্যের পুলিসমন্ত্রীও বটেসুদীপ্ত গুপ্তর মৃত্যুর ঘটনাকে রাজ্য সরকার কোন চোখে দেখছে তার স্পষ্ট প্রতিফলন মুখ্যমন্ত্রীর কথাতেওএবার কলকাতা পুলিসের আচরণেও স্পষ্ট, মুখ্যমন্ত্রীর মনোভাবকে প্রাধান্য দিয়েই কলকাতা পুলিসের মত পেশাদার সংস্থাও তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে

কেন মানবাধিকার কমিশনের নির্দেশ মোতাবেক সাতদিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট পেশ করলেন না কলকাতা পুলিস কমিশনার? কলকাতা পুলিসেরই এক গুরুত্বপূর্ণ আধিকারিকের কথায়, ‘ আমরা কমিশনের নির্দেশের কপি রিসিভ করেছিলাম ৮ই এপ্রিলফলে সাতদিন সময় এখনও আছেসাতদিন মানে ১৫ই এপ্রিল, সেদিন আবার ছুটির দিনফলে ১৬ই এপ্রিলের মধ্যে রিপোর্ট দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে

মানবাধিকার কমিশনের নির্দেশ, সময়সীমাকে কার্যত উড়িয়ে দিয়ে নিজেদের ইচ্ছামত এভাবে সময়সীমা বাড়ানো যেতে পারে? এভাবে কমিশনের নির্দেশ উপেক্ষা করতে পারে কলকাতা পুলিস? এবার কিছুটা সংযমী হয়ে সেই পুলিস আধিকারিকের মন্তব্য ঠিক সময়তেই রিপোর্ট দেওয়া হবেকিন্তু ঠিকসময় মানে কী? কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী সাতদিন মানে ১০ই এপ্রিলআর পুলিস বলছে ১৬ই এপ্রিলের আগে দেওয়া যাবে না

পুলিসী রিপোর্টের এই গড়িমসি আসলে মমতা ব্যানার্জির তত্ত্ব প্রতিষ্ঠার জন্যই, অভিযোগ সংশ্লিষ্ট মহলেরমুখ্যমন্ত্রীর ঘোষিত ল্যাম্পপোস্টে ধাক্কা খাওয়ারগল্প প্রতিষ্ঠা করার যাবতীয় দায় গিয়ে পড়েছে পুলিসের কাঁধেপাশাপাশি প্রেসিডেন্সি জেলের সামনে সুদীপ্ত গুপ্তর আঘাত লাগার সময়কার কোন ঘটনারই ছবি পায়নি পুলিসকারণ সি সি টি ভি-তে কোন ছবিই আসেনিসুদীপ্তর যা ছবি ওই সি সি টি ভি-তে রয়েছে, তা সবই সুদীপ্ত রাস্তায় পড়ে থাকার সময়কারফলে ল্যাম্পপোস্টে ধাক্কাখাওয়ার কোন প্রত্যক্ষ প্রমাণ পুলিসের কাছে নেইতবুও সেই প্রমাণের চেষ্টাতেই এভাবে কমিশনের নির্দেশ উপেক্ষা করেও সময় নিতে চাইছে পুলিস

মানবাধিকার কমিশনের দপ্তর আলিপুরে ভবানীভবনেসেখান থেকে কলকাতা পুলিসের সদর দপ্তর লালবাজারে নির্দেশের কপি পৌছাতে পাঁচদিন লেগে গেলে? কমিশনের এক সদস্য এদিন জানান, নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ৩রা এপ্রিলপুলিস কেন ৮তারিখ নির্দেশ জানতে পারলো না বলা বলা সম্ভব নয়আর এখানেই পুলিসের পরিকল্পিত এই ঢিলেমির সম্ভাবনাই সামনে চলে আসছেএর আগে অম্বিকেশ মহাপাত্রের ঘটনাতেও মানবাধিকার কমিশনের নির্দেশকে বারেবারে অগ্রাহ্য করার ঘটনা ঘটেছিলএমনকি সুদীপ্ত গুপ্তর স্মরণসভার জন্য নেতাজী ইন্ডোর স্টেডিয়ামও দিতে অস্বীকার করেছে রাজ্য সরকারএক ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে সরকারের এই আশঙ্কা, পুলিসী রিপোর্টের ঢিলেমিতেই স্পষ্ট হচ্ছে, মুখ্যমন্ত্রীর বয়ানের থেকে প্রকৃত ঘটনার দূরত্ব বিস্তর

No comments:

Post a Comment